1. admin@dainikbirchattala.com : admin :
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৭:০৩ পূর্বাহ্ন
নোটিশ
দৈনিক বীর চট্টলাতে (অনলাইন পোর্টাল) চট্টগ্রাম জেলাসহ সকল উপজেলা এবং কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা ছবিসহ বায়োডাটা ইমেইল করুনঃ বার্তা কক্ষ ও যোগাযোগ: ০১৮৩৫০৬৪০৪০ ইমেইলঃ dainikbirchattala2020@gmail.com
প্রধান খবর
নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার আগেই ১৫ কোটি টাকার সেতু ধসে খালে ll দৈনিক বীর চট্টলা পাপুলের সংসদ সদস্য পদ বাতিল ll দৈনিক বীর চট্টলা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সীতাকুণ্ড উপজেলা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ll দৈনিক বীর চট্টলা খ্যাতিমান অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানের জানাজা সম্পন্ন ll দৈনিক বীর চট্টলা চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ৭৯ জন চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জরুরী বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত ll দৈনিক বীর চট্টলা দেশে গত ১০ মাসে করোনায় মৃত্যু ৫ হাজার, আত্মহত্যা ১১ হাজার বাচ্চার গায়ের রং ফর্সা করতে গর্ভাবস্থায় খান এই ৭টি খাবার ll দৈনিক বীর চট্টলা আলজাজিরার কনটেন্ট সরাতে ফেসবুক-ইউটিউবকে চিঠি দিল বিটিআরসি

ইসলাম বিষয়ক প্রশ্নোত্তরঃ কিস্তির মাধ্যমে অধিক মূল্যে পণ্য ক্রয় কি জায়েজ?

  • আপডেট টাইমঃ শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২১

প্রশ্ন : আজকাল বিভিন্ন পণ্য কিস্তিতে বেচাকেনা হচ্ছে, কিন্তু এ পণ্যই নগদে ক্রয় করলে কম মূল্যে পাওয়া যায়। এখন আমার প্রশ্ন কিস্তিতে বেশি টাকা দিয়ে ক্রয় করলে কি সুদ হবে? শরিয়ত কী বলে?

উত্তর : নগদ ও বাকি বেচাকেনার মাঝে কমবেশি মূল্য নির্ধারণ করা জায়েজ আছে। অবশ্য ক্রেতা-বিক্রেতা দুই পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট মূল্য নির্ধারণ করতে হবে। আপনার বর্ণিত প্রশ্নে এখানে অতিরিক্ত টাকা পণ্যের বিপরীতে, অতিরিক্ত টাকা টাকার পরিবর্তে নয়, এ জন্য সুদ হবে না। যদি সুনির্দিষ্ট মূল্য নির্ধারণ করা হয়, তাহলে কিস্তির মাধ্যমে পণ্যের মূল্য পরিশোধ করা ইসলামিক বিশেষজ্ঞরা জায়েজ বলেছেন।

তথ্যসূত্র : নাসায়ি শরিফ, হাদিস নং-৪৫৬৬, মিশকাত শরিফ নং-২৭৪৮, বাদায়ূস সানাঈ খণ্ড-৫, পৃষ্ঠা-১৮৭, আল বাহরুর রায়েক, খণ্ড-৫, পৃষ্ঠা-২৮০, কিতাবুল ফাতাওয়া, খণ্ড-৫ পৃষ্ঠা-১৯৭।


প্রশ্ন : মৃত্যুশয্যায় শায়িত ব্যক্তির সঙ্গে আমাদের করণীয় কী? জানালে উপকৃত হব?

উত্তর : মৃত্যুশয্যায় শায়িত ব্যক্তির চেহারা কিবলামুখী করে দেয়া এবং তার সামনে বসে তাকে শুনিয়ে কালেমা তায়্যিবা ও কালেমা শাহাদাত পড়া পাশে থাকা লোকদের দায়িত্ব। তবে তাকে কালেমা পড়ার আদেশ দেয়া যাবে না বরং তাকে শুনিয়ে পড়তে থাকবে। তার পাশে বসে সূরা ইয়াসিন পড়বে।

উল্লেখ্য, শয্যাশায়ী ব্যক্তি কালেমা একবার পড়ে নিলে তারপর যদি দুনিয়াবী কোনো কথা না বলে তাহলে দ্বিতীয়বার কালেমা পড়ার কথা বলা উচিত নয়।

তথ্যসূত্র : মুসলিম শরিফ, হাদিস নং-৯১৬, আবু দাউদ শরিফ, হাদিস নং-৩১২১, মুস্তাদরাক, হাদিস নং-১৩০৫।

 

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

এই কেটাগরির আরো খবর
© All rights reserved © 2021 dainikbirchattala.com
Theme Customized By BreakingNews